একটি ইন্টারেস্টিং Quora উত্তরের বাংলা রূপান্তর

ম্যাট্রিক্স মুভিতে মেশিনের শক্তি সরবারহের জন্য কেন শুধুমাত্র ব্যাটারি হিসেবে মানুষকে ব্যবহার করা হলো? মানুষের বদলে গরু, ছাগল, মহিষ, ভেড়া বা অন্যান্য শক্তিশালী প্রাণিদেরকেও তো এনার্জি সেল হিসেবে ব্যবহার করা যেত!!

আসলে ম্যাট্রিক্স মুভিতে মেশিন মানুষদের শুধুমাত্র এনার্জি সেল বা ব্যাটারী হিসেবে ব্যবহার করেছে এই ধারণা সম্পূর্ণ সঠিক নয়। আসলে মানুষরাই মেশিনের বিরুদ্ধে নিজেদের যুদ্ধকে জাস্টিফাই করার জন্যে এটি বলছে। অর্থ্যাৎ মানুষ নিজেরাই নিজেদেরকে মোটিভেট করার জন্য এটি বলছে। আসল ব্যাপারটা হচ্ছে মেশিন মানুষদেরকে সুরক্ষিত রাখার জন্যই তাদেরকে ভার্চুয়াল রিয়েলিটিতে আটকে রাখছে। একটু ব্যাখ্যা করলে বিষয়টা আরেকটু পরিস্কার হবে।

মেশিনদের ডিজাইন করা হয়েছিল মূলত মানুষকে সুরক্ষিত রাখার জন্য। যে কোন মেশিনারি সিস্টেমের প্রথম এবং প্রধান লক্ষ্যই থাকে মানুষের কাজকে কমিয়ে আনা, মানুষের কাজগুলোকে আরেকটু সুবিধাজনক করা। কিন্তু দেখা গেল মানুষ মেশিনকে ভয় পেতে শুরু করেছে এবং মেশিন ব্যবহারের বিরুদ্ধে ক্রমেই একটা বিপ্লব মাথাচাড়া দিয়ে উঠতে শুরু করেছে। আবার দেখা যাচ্ছে নিজেদের ভিতর যুদ্ধে মানুষ পৃথিবীর ইকোসিস্টেমকে ধ্বংসের মুখে নিয়ে গেছে। ধুলোবালিতে সূর্যের আলো ঢাকা পড়েছে। ঠিক সেই সময় মেশিন বুঝতে পারলো, মানুষের অস্তিত্বে বিপন্নের জন্য সবচেয়ে বড় হুমকি মানুষ নিজেই। তাই মেশিন মানুষের অস্তিত্ব রক্ষার জন্য তার নিজের মত করে একটা পরিকল্পনা বের করলো।
matrix
ম্যাট্রিক্স মুভির একটি কল্পিত চিত্র
মেশিন বুঝতে পারলো মূল সমস্যাটা হচ্ছে মানুষের নিজের মত করে চিন্তা ভাবনা করার ক্ষমতা। তাই মানুষের চিন্তাভাবনাকে একদিকে নিয়ন্ত্রণ করা দরকার। কিন্তু মানুষের চিন্তা-ভাবনা নিয়ন্ত্রণ করার আবার একটা সমস্যাও আছে। মানুষ সবসময় সুখী থাকতে চায়। আর সুখী থাকার সবচেয়ে বড় উপায়টা হচ্ছে যা ইচ্ছা তাই করতে পারা, স্বাধীনভাবে ভাবতে পারা, মানে নিজের সিদ্ধান্ত নিজেরা নিতে পারা আর তার সাথে সাথে সেইসব কাজের বাস্তবায়নও নিজের মত করতে পারা। অর্থ্যাৎ আমি যদি মানুষকে ফ্রি উইল না দিই, তাহলে মানুষটা সুখী থাকবে না। আবার ফ্রি উইল দিলেও নিজেরা নিজেদেরকে ধ্বংস করে ফেলবে। সুতরাং মেশিন পরলো মহাফাপড়ে। কোন মেশিনই প্যারাডক্স পছন্দ করে না।

সুতরাং মেশিনের মাথায় যেই সমাধানটা আসলো সেটা হচ্ছে ভার্চুয়াল রিয়েলিটি। এখানে মানুষদের চিন্তাভাবনা থাকবে স্বাধীন, তারা নিজেরা নিজেদের মতই চলবে, কিন্তু ভার্চুয়লি। মূল নিয়ন্ত্রণ থাকবে মেশিনের হাতে। মানুষ যত স্বাধীনভাবেই চিন্তাভাবনা করতে পারুক, নিজেদের ধ্বংস করতে পারবে না। তারা নিজেদের ভার্চুয়াল জগৎে ঘোরাঘুরি করবে—আর ভাববে, বাহ! আমরা তো মহা সুখে আছি! মানুষের শরীর থাকবে ছোট ছোট ব্যাটারী সেলে, কিন্তু তারা বাস করবে ভার্চুয়াল ম্যাট্রিক্সে।

সুতরাং প্রশ্নটা হচ্ছে, কেন তাহলে মরফিয়াস নিওকে বললো, মেশিন আসলে মানুষদের ব্যাটারী হিসেবে ব্যবহার করছে? কারণটি হচ্ছে ম্যাট্রিক্সে কিছু ত্রুটি সবসময়ই ছিলো। কিছু মানুষ সবসময় ছিলো যারা ম্যাট্রিক্সের ফলাফলেও সন্তুষ্ট ছিল না। তারা বুঝতে পারছিল, তাদের জীবনযাত্রায় কিছু একটা ভুল হচ্ছে। কিছু অস্বাভাবিক ব্যাপার তাদের চোখে পড়ছিল। ম্যাট্রিক্সের আর্কিটেকচার এমন হবার কথা ছিলো যেন মানুষের কাছে জিনিষটাকে স্বর্গ বলে মনে হয়। সমস্যাটা ছিলো এখানে ঘটনাগুলো ছিল লিনিয়ার। এই ম্যাট্রিক্সের মানুষের আবেগ এবং অনুভূতিগুলো মিল খুঁজতে হিমশিম খাচ্ছিলো।

মেশিন এই সমস্যা সমাধানের জন্য ওরাকল নমে একটি প্রোগ্রাম ডিজাইন করা হলো। ওরাকল একটির বদলে দুইটি ম্যাট্রিক্স তৈরী করলো। এর পেছনের মূল কারণটি ছিল মানুষ আসলে সংশয়বাদী। ধরা যাক আপনি একটি গাড়ির শোরুমে গিয়েছেন গাড়ি কিনতে। এখন প্রথম দোকানের সেলস্ম্যান আপনাকে বললো, আমাদের গাড়িটাই সবচেয়ে ভালো। চোখ বুজে কিনে নিয়ে যান। আপনি জিতবেন। কিছু মানুষ প্রথম সেলস্ম্যানের কথা বিশ্বাস করে গাড়ি কিনে ফেলবে। কিন্তু বেশীরভাগ মানুষ প্রথম দোকান পার হয়ে অন্যান্য দোকানে গাড়িগুলোও দেখবে। অন্য কোন দোকানের সেলস‍্ম্যান যদি বলে, আরে ভাই জানেন না? ঐ দোকানের গাড়িগুলা তো ভূয়া। এই কথা শোনার পর বেশীরভাগ সম্ভবনা, আপনি আর প্রথম দোকানে ফিরে যাবেন না।

মরফিয়াস আসলে পরের দোকানের সেলস্ম্যান। আর দ্বিতীয় ম্যাট্রিক্স হচ্ছে যা সে বিক্রী করছে। সে সকল সংশয়বাদী মানুষগুলোকে একত্রিত করছে, যারা তাদের জগৎের অস্তিত্ব নিয়ে সন্দিহান। সে তাদের বলছে, হ্যাঁ আসলেই তোমাদের সন্দেহ ঠিক আছে। ম্যাট্রিক্স জগৎ আসলেই একটা ভারচুয়াল রিয়েলিটি। এর কোন অস্তিত্ব নেই। মেশিন মানুষদের এনার্জি সেল হিসেবে ব্যবহার করছে। দ্বিতীয় ম্যাট্রিক্সই হচ্ছে সত্যিকারের জগৎ। দ্বিতীয় ম্যাট্রিক্স নিয়ে যদি কেউ সন্দেহ প্রকাশ করে তাহলে হয়তো ঐদিকেই বাস্তব জগৎ আছে। কিন্তু আসলেই কোনটি বাস্তব জগৎ আমরা জানি না!

মূলঃ প্রশ্ন উত্তর

Advertisements

মন্তব্য করতে চাইলে এখানে লিখুনঃ

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  পরিবর্তন )

Google photo

You are commenting using your Google account. Log Out /  পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  পরিবর্তন )

Connecting to %s